Home / ফিচার / আত্মনির্মাণ / যে কথাগুলো বদলে দিবে আপনার জীবন
যে কথাগুলো বদলে দিবে আপনার জীবন

যে কথাগুলো বদলে দিবে আপনার জীবন

​মান অভিমান, স্মৃতি

প্রত্যেকটা মানুষের সম্পর্ক নির্ভর করে অনেক ছোট বড় মান অভিমান, স্মৃতির ওপর। ভালোবাসা তখনি গভীর হয় যখন একজন মানুষ তার প্রিয় মানুষকে বুঝতে পারে।

কথাই মানুষকে

অনেক সময় আমরা অনেক ছোট ব্যাপারে অনেক বড় কিছু হারিয়ে ফেলি যা বুঝতেই পারি না। অথচ ছোট একটা কথা বা বাক্য পুরো বদলে দিতে পারতো ক্ষয়ে যাওয়া সম্পর্ককে। কথাই মানুষকে মানুষের কাছে ছোট করে আবার বড় করে।
ভালোবাসি তোমাকে

ভালোবাসা বলতে শুধু কাপলের মধ্যকার সম্পর্ক বোঝায় না। আমরা বাবা মাকেও কত ভালোবাসি কিন্তু কখনো বলা হয়ে ওঠে না। একবার বলেই দেখুন। যে ভাই বা বোনের সঙ্গে সারাদিন খুনসুটি তাকেও হয়তো কখনো জানাননি কতটা ভালোবাসেন আপনার সেই বোন বা ভাইকে। বলুন আপনার ভালোবাসার কথা দেখবেন সম্পর্কগুলো কত সহজ হয়ে গেছে। ছোট ছোট ভুল বোঝবুঝির মাঝে আপনার ছোট ভালোবাসার কথাটি অনেক বড় ভূমিকা রাখতে পারে। তাই ভালোবাসার কথা বলুন মন খুলে।
ধন্যবাদ

কেউ আপনাকে সাহায্য করলে তাকে ধন্যবাদ দিতে ভুলবেন না। তা সেই উপকার ছোট হোক বা বড়। কেউ যখন কাউকে উপকার করে তখন সে সাধারণত কোনো প্রতিদানের কথা ভেবে উপকার করে না। সুতরাং আন্তরিক থাকুন এবং ধন্যবাদ জানান মন থেকে।
দুঃখিত

অনেক সময় এমন হয় আপনার হয়ত কোনো দোষ নাই কিন্তু কেউ আপনার সঙ্গে মনোমালিন্য করেছেন তাহলে কোনো দ্বিধা না করে তাকে দুঃখিত বলে দিন। কোথাও সময়মত যেতে না পারলে, রাস্তায় কারো সঙ্গে ধাক্কা লাগলে অবশ্যই দুঃখিত বলবেন।
‘না’ না বলা

কাউকে মুখের ওপর না বলবেন না। কোন কাজ না পারলে চেষ্টা করুন। কারো দাওয়াতকে সরাসরি না করবেন না। কেউ কোনো কিছু দিতে চাইলে সঙ্গে সঙ্গে ফেরত দিবেন না।
তুমি একা নও

বিপদের সময় কারো পাশে থাকতে পারাটা মহান ব্যাপার। বিপদে কাউকে কতটা সাহায্য করলেন সেটা বড় ব্যাপার নয়। শুধু তাকে এটাই বোঝান যে সে একা নয়। সাহায্য করতে না পারেন অন্তত পাশে থাকুন বন্ধুর মতো। একটা মানুষের বিপদের সময়ের থেকে সব চেয়ে খারাপ হলো তার একাকীত্ব। আর তা দূর করতে ভূমিকা রাখুন।
অন্যের মতামতকে সম্মান করুন

প্রত্যেকটা মানুষের যেকোনো বিষয় নিয়ে আলাদা আলাদা মতামত থাকবে এটাই তো স্বাভাবিক। তাই বলে তার সঙ্গে ঝগড়ায় লিপ্ত হওয়া ঠিক নয়। সবাই-ই কোনো না কোনো ভালো এবং খারাপ দিক চিন্তা করে মতামত দেন। তাই তার মতামতকে সম্মান করা উচিত। যদিওবা সেটা আপনার মতামতের বিরুদ্ধে হয়।
উৎসাহ প্রদান করুন

কারো কাজে উৎসাহ করলে সে আরো দ্বিগুণ শক্তিতে কাজের উদ্যম পায়। তাই মানুষের কাজের উৎসাহ করুন। ছোট বড় সবাইকে তাদের কাজের জন্য উৎসাহ দেখান।
নিজের দোষ স্বীকার করুন

নিজের ভুলকে স্বীকার করতে শিখুন। মানুষ মাত্রই ভুল করে। তাই বলে ভুলগুলোকে অজুহাত দিয়ে ঢাকার চেষ্টা করবেন না। বরং তা স্বীকার করে নিন। এতে আপনি ছোট হবেন না বরং আপনি আরো অনেক কিছু শিখতে পারবেন। জীবনে নতুন কিছু শেখার জন্য নিজের ভুল স্বীকার করে নেওয়ার থেকে ভালো কিছু হতে পারে না।

About Parves Ahmed

Check Also

​মেজাজ ঠিক রাখার ৫ উপায়

​মেজাজ ঠিক রাখার ৫ উপায়

ক্ষণিকের দুঃসংবাদে মলিন হতে পারে হাসিমুখ। মন খারাপ হতে পারে। বিষণ্নতা এসে ভর করতে পারে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *