Home / কেরিয়ার / কাজের ক্ষেত্র / কফি হাউসে মেয়েদের ক্যারিয়ার
কফি হাউসে মেয়েদের ক্যারিয়ার

কফি হাউসে মেয়েদের ক্যারিয়ার

কফি হাউসের কালচার আমাদের দেশে খুব বেশি পুরনো নয়। যদিও এ ধরনের প্রতিষ্ঠান বিভাগীয় শহরগুলোতেই চোখে পড়ে এবং তরুণরাই মূলত এর গ্রাহক। গ্রাহকসেবা দেওয়ার লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষ কফি হাউসগুলোতে নিয়োগের ক্ষেত্রে তরুণীদেরকেই প্রাধান্য দিচ্ছে। এখানে খন্ডকালীন কাজেরও সুযোগ রয়েছে।

 

লিখেছেন- ফারহানা নীলা।

 

আধুনিক এই যুগে কাজের ক্ষেত্রে ছেলেদের কাজ এবং মেয়েদের কাজ এভাবে আলাদা করে দেখার সুযোগ নেই। ছেলেরা যে কাজটি করছে, মেয়েরাও সমানতালে সে কাজে অংশগ্রহণ করছে। পুলিশ থেকে শুরু করে সেনাবাহিনী, সাংবাদিক, এমন কি মেয়েরা পাইলটও হচ্ছে। আধুনিক সব পেশাতেই ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরা নিজেদের স্থান যোগ্যতা বলে করে নিচ্ছে। আধুনিক সব পেশাতেই ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরা নিজেদের স্থান যোগ্যতা বলে করে নিচ্ছে। দেশের জেলা শহরগুলোতে বিভিন্ন নামের রেস্টুরেন্ট, ক্যাফে দেখা যায়। এই তালিকায় নতুন সংযোজন কফি হাউস। এমন এক সময় ছিল, সখন এসব রেস্টুরেন্ট বা ক্যাফেতে শুধুমাত্র ছেলেদের কাজ করতে দেখা যেত। কিন্তু বর্তমানে বেশ কিছু কফি হাউসে মেয়েদেরও কাজ করতে দেখা যাচ্ছে।

 

কাজের ক্ষেত্র

যদিও আমাদের দেশে মেয়েরা কর্মরত আছেন এমন কফি হাউসের সংখ্যা কম। তারপরেও এক, দুই করে মেয়েদের কফি হাউস গড়ে উঠছে। তেমনি কিছু কফি হাউস হলো-

 

রাজধানীর মিরপুর-২ এ ‘বাংলার মেলা’ ফ্যাশন হাউস এর পাশেই ‘ক্যাফে বাংলার মেলা’। এই কফি হাউসটি পুরোপুরি মেয়েদের দ্বারা পরিচালিত। এখানে কুক থেকে শুরু করে ব্যবস্থাপনার দায়িত্বেও রয়েছে মেয়েরা। এখানে কফির পাশাপাশি ঘরোয়া পরিবেশে বিভিন্ন ধরনের খাবার সামগ্রী পাওয়া যায়। ফাস্টফুডের বিভিন্ন আইটেম ছাড়াও তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন ফলের জুস বানিয়ে পরিবেশন করা হয় এবং এসবই করে এখানকার মেয়েরা। মহাখালীতে অবস্থিত ক্যাপ্টেন ওয়ার্ল্ড। এখানে চা, কফি ছাড়াও ফাস্টফুডের বিভিন্ন আইটেম পাওয়া যায়। ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরাও এখানে পার্টটাইম, ফুলটাইম কাজ করে।

পদ, যোগ্যতা ও পারিশ্রমিক

কফি হাইসে নিম্নলিখিত পদে মেয়েরা কাজ করতে পারেন।

 

• ব্যবস্থাপক

ব্যবস্থাপকের কাজ হলো ক্যাশিয়ার, সেলস গার্ল, কুক, ক্লিনার এদের পরিচালনা করা এবং প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন  সিদ্ধান্ত নেওয়া। খাবারের কোন আইটেম রাখবেন কোনটা রাখবেন না বা কফি হাউসে কি কি প্রয়োজন সবকিছুই তিনি তদারক করেন।
যোগ্যতা: এই পদের জন্য সাধারনত মাস্টার্স পাশ চাওয়া হয় এবং অভিজ্ঞতা থাকলে বাড়তি যোগ্যতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
পারিশ্রমিক: একজন ব্যবস্থাপকের পারিশ্রমিক ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

 

• ক্যাশ কাউন্টার

কফি হাউসে সাধারণত বিল আগে পরিশোধ করতে হয়। আইটেম পছন্দ করে তারপর অর্ডার দিতে হয়। এসব ক্ষেত্রে ক্যাশ কাউন্টারে যিনি থাকেন, তিনি অর্ডার নেন এবং গ্রাহকের নিকট থেকে অর্ডার অনুযায়ী ক্যাশ রিসিভ করেন এবং দিনব্যাপী যা বিক্রি হয় সেই হিসাব খাতায় লিখে রাখেন। কাজ শেষে মোট বিক্রি যোগ করে, ক্যাশ ব্যবস্থাপকের নিকট বুঝিয়ে দেন

যোগ্যতা: সাধারণত এই পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা বিকম পাশ চাওয়া হয়।
পারিশ্রমিক: এই পদের জন্য বিভিন্ন কফি হাইসে ১০-১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত পারিশ্রমিক দেওয়া হয়।

 

• সেলস গার্ল

সেলস গার্ল এখানে মূলত খাবার পরিবেশন করেন। গ্রাহকের অর্ডার অনুযায়ী পরিবেশন করা হয়। তবে কফি হাউসগুলোতে Self Service এর ব্যবস্থা থাকে। এক্ষেত্রে সেলস গার্লদের কাজ সীমাবদ্ধ থাকে কাউন্টার পর্যন্ত।
যোগ্যতা: এই পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি এবং এইচএসসি চাওয়া হয়।
পারিশ্রমিক: সেলস গার্ল-এর পারিশ্রমিক ৩-৪ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

 

• কুক

কুকের কাজ হলো খাবার তৈরি করা। খাবারের মানের উপরই কফি হাউসের স্থায়ীত্ব অনেকটা নির্ভর করে। কারণ খাবারের মান ভালো না হলে স্বাভাবিকভাবেই গ্রাহক সেই কফি হাউসের প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন।
যোগ্যতা: চা, কফি তো বটেই, সুস্বাদু ফাস্টফুড আইটেম তৈরি করা জানতে হবে। আজকাল অবশ্য এ বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রেয়েছে। প্রশিক্ষণ নেওয়া থাকলে বিষয়টি বাড়তি যোগ্যতা হিসেবে ধরা হয়।
পারিশ্রমিক: বিভিন্ন জায়গায় কুকের পারিশ্রমিক বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। তবে সাধারনত ৬-১০ হাজার টাকা পর্যন্ত পারিশ্রমিক দেওয়া হয়।

 

প্রয়োজনীয় গুণাবলি

কফি হাউসের কাজ করতে গেলে শিক্ষাগত যোগ্যতা ছাড়াও আরও কিছু গুণাবলির প্রয়োজন।
যেমন-
• হতে হবে হাস্যময়ী, গ্রাহকের সঙ্গে হেসে কথা বলতে হবে।
• তীক্ষ্ন বুদ্ধিসম্পন্ন হতে হবে। কারণ গ্রাহক খাবারের বিভিন্ন দিক জানতে চাইবেন। এ সময় তাকে সতর্কভাবে উত্তর দিতে হবে।
• ধৈর্যশীল হতে হবে। কারণ অনেক গ্রাহক আছেন যারা খাবারের মান নিয়ে বিভিন্ন (নেগেটিভ দিক) কথা বলবেন। ধৈর্য নিয়ে সেগুলো শুনতে হবে।
• সৎ হতে হবে। পুরনো, বাসি খাবার সরবরাহ করলে কিংবা গ্রাহক খাবারের মানের কারণে অসন্তুষ্ট হলে কফি হাউসের সুনাম নষ্ট হবে।

 

সুযোগ-সুবিধা

কফি হাউসে মেয়েদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়। যেমন-
• খন্ডকালীন কাজের সুযোগ আছ। ফলে লেখাপড়ার পাশাপাশি কাজ করা যায়।
• প্রতি ঈদে বোনাস দেওয়া হয়।
• সপ্তাহে এক দিন ছুটির ব্যবস্থা রয়েছে।

About Muhammad Faisal

Muhammad Faisal
একরাশ স্বপ্ন মুঠোয় করে হাটছি অবিরাম..........

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *