Home / তথ্য বিচিত্রা / যা কিছু প্রথম / বাদ্যযন্ত্রের যা কিছু প্রথম
বাদ্যযন্ত্র যা কিছু প্রথম

বাদ্যযন্ত্রের যা কিছু প্রথম

বীণা

প্রায় ৫০০০ বছর আগে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যে আলাদাভাবে বীনাজাতীয় যন্ত্রের উদ্ভব  ও বিকাশ হয়েছে। বেশিরভাগ তারওয়ালা বাদ্যযন্ত্রের পূর্বপুরুষ এই বীনাজাতীয় বাদ্যযন্ত্র। এটার ছিল একটি অনুমাদক দেহের (Resonating Body) সাথে সংযুক্ত একটি গ্রীক বা ফিঙ্গারবোর্ড এবং আঙুল দিয়ে টেনে বা ছড় দিয়ে বাজানোর জন্য কতগুলো সমন্বয়কারী তার।

ম্যান্ডোলিন

ম্যান্ডোলিন প্রথম তৈরি করে ২৩০০ বছর আগে উত্তর চীনের এক বর্বর উপজাতি। এটা ছিল চার তারবিশিষ্ট বীনাজাতীয় যন্ত্র। প্রাচীন ম্যান্ডোলিনকে এর নাশপাতি আকৃতির অনুনাদী ক্ষেত্রের জন্য সহজে আলাদা করে চেনা যেতো। এর নাম ছিল ‘পাই পা’। আধুনিক পশ্চিম ইউরোপীয় ম্যান্ডোলিন এর উদ্ভব হয় স্পেনে। সম্ভবত ১৬ শতকে স্পেনের নাভার বা বিসকা অঞ্চলের অধিবাসীরা আধুনিক এই ম্যান্ডোলিনের উদ্ভাবক।

গিটার

কতগুলো প্রাচীন মিশরীয় (খ্রিস্টপূর্ব ২১৫০০-১৯৪০)বীনাজাতীয় যন্ত্রের অনুনাদী দেহের আকার ছিল বর্তমানে গিটার এর মতো। ১৯০০ বছরের পুরনো একটি চিত্রে ছোট আকারের গীটার এর চিত্রটি পাওয়া গিয়েছিল তারমেজের কাছাকাছি কোনো স্থানে (বর্তমান উজবেকিস্তান)। ঐ চিত্রকর্মটিও সাথে প্রাপ্ত আরও কিছু চিত্র মিলিয়ে ধারণা করা হয় যে, গীটারের উৎপত্তি হয় ২০০০ বছর আগে মধ্য এশিয়ায় এবং এটি পরবর্তী সময়ে পশ্চিম বেশ জনপ্রিয়তা পায়।

বেহালা

প্রথম বেহাল তৈরি হতো ১৫০০ খ্রিস্টব্দের অল্প আগে উত্তর ইতালিতে। ১৫০০ খ্রিস্টব্দের এই বেহালা প্রায়োগিক ও কৌশলের দিক দিয়ে পূর্ণ বিকশিত হতে কতকগুলো অধ্যায় পার করতে  হয়েছে। চওড়া আকৃতির বেহালাটি ছিল তিন তারবিশিষ্ট। ১৫ শতকের শেষ দিকের লীরা দ্য ব্রাকিও (Lira da brachio) নামের একটি বাদ্যযন্ত্র ছিল বর্তমান সময়ের বেহালার কাছাকাছি। ১৫ শতকের পর ষোড়শ শতকের কয়েক দশকেই ১৫ শতকের পর ষোড়শ শতকের কয়েক দশকেই বেহালার দ্রুত বিকাশ হতে থাকে এবং চার তারবিশিষ্ট আধুনিক বেহালার উদ্ভব হয়।

স্যাক্সোফোন

এডলফ স্যাক্স (১৮১৪-৯৪ খ্রিস্টব্দে) নামে ব্রাসেলস (বেলজিয়ামের রাজধানী) এর একজন পেশাদার বাদ্যযন্ত্র নির্মাতা স্যাক্সোফোন উদ্ভাবন করেন। ১৮৪২ সালে প্যারিসে বসবাসের উদ্দেশ্যে গমন করার কিছুদিন আগে তিনি এই বাদ্যযন্ত্র তৈরি করেন। বেইস ক্লারিনেটের উপর কাজ করার সময় তিনি স্যাক্সোফোন তৈরির ব্যাপারে উৎসাহী হন। প্রাথমিক সাফল্যের পরে ১৮৪৬ সালে তিনি এ যন্ত্রের উন্নত সংস্করণ আবিষ্কার করেন।

বাশিঁ

চৈনিক সঙ্গীতজ্ঞরা বাঁশি জাতীয় বহু বাদ্যযন্ত্র তৈরি করেছিলেন। জো রাজ বংশের শাসনামলে খ্রিস্টপূর্ব ১০০০ এর কাছাকাছি সময়ে তারা প্রথম মাইথ অর্গান তৈরি করেন। একটি মূল বাঁশির মাধ্যমে আরও দুই সারি বাঁশিরদে ফুঁ দিয়ে এটি বাজাতে হতো। মাইথ অর্গান ইউরোপে প্রচলিত হয় ১৭৭৭ খ্রিস্টাব্দে।

অর্গান

প্রাচীন গ্রীসের অধিবাসীরা যে অর্গান ব্যবহার করতো তাতে থাকতো চাবি, কপাটিকা (valve) এর বাতাসকে চেপে রাখা ও বাঁশিতে বাতাস পরিচালনের জন্য সিলিন্ডার। সুতরাং বোঝা যায়, এর শব্দ আজকের দিনের অর্গানের থেকে আলাদা ছিল না। সম্ভবত খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতকে হেলেনিস্টিক সময়কালের প্রথমদিকে এটি তৈরি হয়েছিল।

বৈদ্যুতিক গিটার

১৯২০ সাল থেকেই যুক্তরাষ্ট্রে অ্যামপ্লিফাইং হিটারের বৈদ্যুতিক পদ্ধতি উদ্ভাবন নিয়ে কাজ শুরু হয়। ১৯৩০ সালের প্রথম দিকে পৃথক পৃথকভাবে কয়েকটি বৈদ্যুতিক গিটার তৈরি হয়েছিল। একইসাথে অনেকেই তখন বৈদ্যুতিক গিটার উদ্ভাবন নিয়ে কাজ করছিল বলে আবিষ্কারের কৃতিত্ব এককভাবে কাউকে দেয়া সম্ভব নয়। ১৯১৩ সালে Electro String Instrument Company ১৯৩০ সালে উদ্ভাবিত গিটারের অনুকরণে ‘Rickenbacker’ নামে ইলেকট্রিক গিটার বাজারে ছাড়া হয়। এর ফাঁপা ধাতব দেহের কারণে এটি তখন ‘frying pans’ নামে বেশি পরিচিত হয়ে উঠেছিল।

পিয়ানো

ইতালিয় বাদ্যযন্ত্র নির্মাণকারী বার্থালেমিও ক্রিস্টোফার ১৬৯৮ খ্রিস্টাব্দে প্রথম পিয়ানো তৈরির কাজ শুরু করেন। পিয়ানোর পূর্ব সংস্করণ হার্পসিফোর্ড তৈরির  কাজ করতেন ক্রিস্টোফোর্ড তৈরির কাজ করতেন ক্রিস্টোফার। ১৭০০ খ্রিস্টাব্দে ফ্লোরেন্স প্রাসাদের বাদ্যযন্ত্রের তালিকায় পিয়ানোও ছিল। সুতরাং ধারণা করা হয় ততদিনে একটি হলেও পিয়ানো তৈরির কাজ শেষ হয়েছিল।  আজকের দিনের পিয়ানোর সাথে তুলনা করলে ক্রিস্টোফারের পিয়ানো ছিল প্রায়োগিক কৌশলে প্রাথমিক ধরনের। তবে তার আবিষ্কৃত এই বাদ্যযন্ত্র ১৯ শতকের আগ পর্যন্ত কোনোরূপ পরিবর্তন ছাড়াই প্রচলিত ছিল।

সিনথ্যাসাইজার

প্রথম ‘RCA Electrie Synthesizer’ উদ্ভাবন করেছিলেন হ্যারি এফ ওলসেন ও হ্যাবার্ট এফ বেলার যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটনের RCA ল্যাবরেটরিতে। ১৯৫২ সালে তারা এটি  উদ্ভাবন করলেও প্রকাশ করেন ১৯৫৫ সালে। সিনথ্যাসাইজার নিয়ন্ত্রিত হতো টাইপরাইটারের মতো কী-বোর্ড হতে পাওয়া আউটপুট হিসেবে পাঞ্চ করা এক ফুটেরও অধিক প্রশস্ত কাগজের ফিতা দিয়ে।

About Parves Ahmed

Parves Ahmed
অনুকরণ নয়, অনুসরণ নয়, নিজেকে খুঁজে চলেছি, নিজেকে জানার চেষ্টা করছি, নিজের পথে হেটে চলছি॥

Check Also

নাগরিক সুযোগ সুবিধার যা কিছু প্রথম

নাগরিক সুযোগ সুবিধার যা কিছু প্রথম

• পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা খ্রিস্টপূর্ব ২৭০০ অব্দে দক্ষিণ মেসোটেমিয়ানরা তাদের শহরগুলোতে পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা গড়ে তুলেছিল। প্রত্মতাত্ত্বিকেরা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *