Home / তথ্য বিচিত্রা / জগদ্বিখ্যাত লাইব্রেরিগুলোর ইতিকথা
জগদ্বিখ্যাত লাইব্রেরিগুলোর ইতিকথা

জগদ্বিখ্যাত লাইব্রেরিগুলোর ইতিকথা

বই। জ্ঞানের উৎস। পূরণ করে মনের খোরাক। বিকশিত হয়ে উঠে মন ও মনন। আর এই বইয়ের উৎস লাইব্রেরি। বিশ্বের বিশাল বিশাল লাইব্রেরির সঙ্গে বাংলাদেশের লাইব্রেরিগুলোর তুলনা করলে শুধু দুঃখের পাল্লাই ভারী হয়। পৃথিবীতে যে জাতি যত সমৃদ্ধ – উন্নত সে জাতি ততো বেশি বই পড়ে। বতর্মান বিশ্বের নেতৃত্বের আসনে প্রতিষ্ঠিত দেশগুলোর মত সমৃদ্ধ লাইব্রেরি এদেশেও গড়ে উঠুক। এটাই কামনা। আসুন তবে, জগদ্বিখ্যাত লাইব্রেরিগুলো সম্পর্কে সংক্ষেপে জেনে নিই:-

আমেরিকান লাইব্রেরি অব কংগ্রেসঃ

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় লাইব্রেরি। সুবিশাল এই লাইব্রেরীর সংগ্রহে আছে সর্বাধিক সংখ্যক বই, রেকর্ডিংস ,মানচিত্র ও পান্ডুলিপি। এগুলো সংখ্যায় প্রায় ৩৩,০১২,৭৫০ টি। এটি ওয়়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত এবং আমেরিকার সব থেকে পুরোনো লাইব্রেরি। আমেরিকান লাইব্রেরি অব কংগ্রেস স্থাপিত হয়েছিল ১৮০০ সালে। প্রেসিডেন্ট জন অ্যাডামস যখন সরকারি কার্যাবলী ফিলাডেলফিয়া থেকে ওয়াশিংটন এ স্থানান্তর করেন তখন থেকে এর যাত্রা শুরু।

ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব চায়নাঃ

এটি এশিয়ার সব থেকে বৃহৎ ও বিখ্যাত লাইব্রেরি এবং পৃথিবীতে দ্বিতীয়। এর সংগ্রহে আছে প্রায় ২৮,৯৮০,৭৭৭ বই। প্রায় ১২,০০০,০০ সাময়িকী এর অন্তর্ভুক্ত। চীনা সাহিত্যের সব থেকে বড় সংগ্রহ আছে এতে। লাইব্রেরিটি স্থাপিত হয় চীনের বেইজিং এ ১৯০৯ সালে। চীনের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত সব ধরনের বই আছে এতে।

ন্যাশনাল লাইব্রেরি অব কানাডাঃ

লাইব্রেরিটি কানাডার কেন্দ্রীয় সরকারের একটি বিভাগ। এই বিভাগ কানাডার ইতিহাস ও সংস্কৃতির সঙ্গে সম্পৃক্ত লেখা, ছবি ও দলিলপত্র সংগ্রহ ও সংরক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত। এই লাইব্রেরির সংগ্রহে রয়েছে প্রায় ২৬,০০৬,০৫৪টি বই। এটি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম লাইব্রেরি। কানাডার সব থেকে সুন্দর এই লাইব্রেরিটি কানাডার সরকারি সম্পত্তি।

ডিউচে বিবলিওথেক লাইব্রেরিঃ

জার্মানির জাতীয় গ্রন্থাগার। এটি স্থাপিত হয়েছিল ১৯১২ সালে। এটির কাজ মূলত জার্মান ভাষার প্রকাশনা সংগ্রহ করা। তবে জার্মানিতে প্রকাশিত অন্য ভাষার প্রকাশনাও এখানে সংগ্রহ করা হয়। এটি পৃথিবীর বড় লাইব্রেরিগুলোর মধ্যে অন্যতম। এই বিখ্যাত লাইব্রেরির সংগ্রহে আছে ২৪,৪৮৭,০১০টি বই ও অন্যান্য প্রকাশনা।

ব্রিটিশ লাইব্রেরিঃ

যুক্তরাজ্যের জাতীয় গ্রন্থাগার। প্রতিষ্ঠিত হয় ১৭৫৩ সালে। লন্ডনে অবস্থিত লাইব্রেরিটি পৃথিবীর বিখ্যাত গবেষণা গ্রন্থাগারগুলোর একটি। এতে আছে প্রায় সকল ভাষার বিভিন্ন প্রকারের বইয়ের সংগ্রহ আছে। বইয়ের সংখ্যা প্রায় ১৫,৫০০,০০০ এরও বেশি এবং সংগৃহীত বইয়ের সংখ্যা প্রায় ২৩,৫০০,০০০টি। প্রতি বছর প্রায় ব্রিটিশ লাইব্রেরির সংগ্রহশালায় যুক্ত হয় প্রায় ৩০,০০০,০০ নতুন বই।

হারভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিঃ

এটি একটি লাইব্রেরি সিস্টেম। প্রায় ৯০টি শাখা সমন্বিত। সর্বমোট বইয়ের সংখ্যা ১৫,০০০,০০০টি। এটি আমেরিকার সব থেকে পুরোনো লাইব্রেরি সিস্টেম এবং পৃথিবীর প্রাচীন একাডেমিক লাইব্রেরি সিস্টেমগুলোর মধ্যে অন্যতম। এটি পৃথিবীর ষষ্ঠ বৃহত্তম লাইব্রেরি। স্থাপিত ১৬৩৮ সালে।

রাশিয়ান স্টেট লাইব্রেরিঃ

রাশিয়ার মস্কোতে অবস্থিত রাশিয়ার জাতীয় গ্রন্থাগার। কার্যক্রম শুরু হয় ১৭৯৫ সালে। এটি রাশিয়ার সব থেকে প্রাচীন, বৃহত্তম ও জনপ্রিয় লাইব্রেরি। এর সংগ্রহে রয়েছে প্রায় ১৪,৭৫০,০০০ এর বেশি বই।

নিউইয়ার্ক পাবলিক লাইব্রেরিঃ

পৃথিবীর অন্যতম প্রধান গ্রন্থাগার এবং আমেরিকার বিখ্যাত গবেষণা গ্রন্থাগার। এটি স্থাপিত হয় ১৮৯৫ সালে এবং এর শাখার সংখ্যা ৮৭টি। এই লাইব্রেরির সংগ্রহ সংখ্যা প্রায় ১৪,৬৮৫,১৯২টি বই।

ন্যাশনাল ডায়েট লাইব্রেরিঃ

পৃথিবীর বড় ও বিখ্যাত লাইব্রেরিগুলোর একটি। লাইব্রেরিটি অবস্থিত জাপানের টোকিওতে। ১৯৪৮ সালে এটি জননীতি সংক্রান্ত গবেষণার জন্য স্থাপিত হয়। এতে আছে প্রায় ১৪,৩০৪,১৩৯টি বই। সমগ্র জাপান জুড়ে এর ২৭ টি শাখা আছে। বিজ্ঞান, ধর্ম, রাজনীতি, আইন, মানচিত্র, সংগীতসহ সব ধরনের বই এতে আছে।

ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় লাইব্রেরিঃ

হ্যাভেন, কানেকটিকাট, আমেরিকায় অবস্থিত ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় লাইব্রেরির সিস্টেম। স্থাপিত হয় ১৭০১ সালে। এটি সব থেকে বড় একাডেমিক লাইব্রেরির অন্যতম। ২২টি আলাদা লাইব্রেরির সমন্ময়ে গঠিত এই লাইব্রেরি সিস্টেমে ১৩,০০০,০০০টি বই সংগ্রহে আছে। সংগ্রহের দিক থেকে এটি শ্রেষ্ঠ লাইব্রেরিগুলোর একটি এবং বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের জ্ঞানী গুণীদের আগমনস্থল।

About Ahamad Jubayer

Ahamad Jubayer
সবারই নিজস্ব একটা জগৎ আছে। সেখানে রয়েছে তার নিজস্ব নদী, পাহাড়, বন, ঝরনাসহ আরো কত কি? তার জগতে সে অপ্রতিদ্বন্দ্বী। নায়ক। বীর। বলা চলে সব্যসাচী। জগতটাতে অন্য কারো অনুপ্রবেশ নিষিদ্ধ না হলেও, প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠাটা অসহনীয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *