Home / হাতে কলমে / আদবকেতা / সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আদবকেতা
সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আদবকেতা

সাস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আদবকেতা

স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, সভা – সমিতি, সংঘ, লাইব্রেরি, যাদুঘর, থিয়েটারসহ নানা সামাজিক সংগঠন বিশেষ দিবস, ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এসব ক্ষেত্রে বিশেষায়িত আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে কিংবা শেষে সাংস্কৃতিক পর্ব শুরু হয়। সতর্ক না হলে এসময় অনাকাঙ্ক্ষিত বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি পন্ড করে দিতে পারে পুরো অনুষ্ঠানটিই। খুব সামান্যতেই তখন বড় আকারের ব্যর্থতা দেখা দিতে পারে। আর এই অনিষ্টের জন্য দায়ী হতে পারেন আপনি নিজে।

অতএব সাবধান! অনুষ্ঠান নিজে উপভোগ করুন, সুস্থিরভাবে অন্যদেরও অনুষ্ঠান উপভোগের সুযোগ দিন। মনে রাখবেন আপনার সংস্কৃতি সচেতনতার মাধ্যমেই অনুষ্ঠানটি সাফল্যমন্ডিত হবে।

যা করা উচিত

• সকলের গ্রহনযোগ্য অর্থাৎ সামাজিক পোশাক পরে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করুন।

• হলের সামনে সিগারেট খাওয়া কিংবা সঙ্গীর জন্য এন্ট্রি পয়েন্টে অপেক্ষা করা থেকে বিরত থাকুন। এতে অন্যরা অসুবিধা বোধ করতে পারেন।

• এন্ট্রিপাস বা টিকিট আগে থেকেই নিশ্চিত করে রাখুন।

• বেশি ভিড় হলে শৃঙ্খলার সাথে হলরুমে প্রবেশ করুন। পূর্ব নির্ধারিত আসন না থাকলে পছন্দসহ আসনে ঝটপট বসে পড়ুন।

• অনুষ্ঠান চলাকালীন পাশে বসা সঙ্গীর সাথে কথা বলতে হলে চাপা স্বরে বলুন। বেশি কথা না বলাই ভালো।

• অন্যের কনসেনট্রেশনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করুন। একান্ত প্রয়োজনে বাইরে গিয়ে কাজ সেরে আসুন। তবে বারবার সিট ছেড়ে উঠে দাঁড়ানো, বাইরে যাওয়া, ফিরে আসা ইত্যাদি ব্যাপারে হলরুমের অন্য দর্শক যেন বিরক্ত না হন সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

• মোবাইল ফোন সাইলেন্ট মুড বা ভাইব্রেশন দিয়ে রাখুন।

• কিছু যদি খেতেই হয় তাহলে বিরতির সময় লাউঞ্জে বেরিয়ে যান।

• সঙ্গে ছোট ছেলেমেয়ে থাকলে সে যদি বিরক্ত অথবা কান্নাকাটি করে তবে তাকে নিয়ে বাইরে বেরিয়ে আসুন।

• পুরো অনুষ্ঠানটি উপভোগ করুন কিংবা অনুষ্ঠান পছন্দ না হলে যথাসম্ভব অন্যের অসুবিধা সৃস্টি না করে বেরিয়ে আসুন।

• অনুষ্ঠানের পর কোনো শিল্পীর সঙ্গে দেখা করতে চাইলে উদ্যোক্তাদের অনুমতি নিয়ে গ্রিনরুমে ঢুকুন।

যা করা উচিত নয়

• অনুষ্ঠান যতই মনের মতো হোক না কেন ঘন ঘন হাততালি কিংবা চেঁচিয়ে প্রশংসা ছুঁড়বেন না। ব্যাপারটি দর্শক কিংবা শিল্পী উভয়ের জন্যই অস্বস্তিকর হতে পারে।

• পাশের সিটে কিংবা হলরুমে কোথাও বন্ধু কিংবা পরিচিত জনকে দেখে উচ্চস্বরে সম্ভাষণ বা কথা বলবেন না।

• পূর্ব নির্ধারিত আসন টপকে অন্য আসনে বসবেন না।

• এন্ট্রিপাস বা টিকিট সংক্রান্ত কাজে কর্তৃপক্ষের দীর্ঘসূত্রিতা দেখা দিলে ধৈর্যহারা হবেন না।

• উদ্যোক্তাদের ম্যানেজমেন্টে আপনি সন্তষ্ট না হলেও উত্তেজিত হবেন না। ছোটখাটো ব্যাপার নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনার জন্ম দিলে আপনার ব্যক্তিত্বের সংকীর্ণতা ধরে পড়বে।

• হল কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেই এমন খাবার, পানীয়, সাজ-সরঞ্জাম সাথে রাখবেন না।

• আপনার পোশাক-পরিচ্ছেদ এমনভাবে সামলিয়ে রাখুন যাতে পাশের দর্শকের বিরক্তির উদ্রেক না করে।

• পাশের সিটে বসা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি অশোভন আচরণ করবেন না।

• মোবাইল ফোনের বাড়াবাড়ি ব্যবহার করবেন না।

• অনুষ্ঠান চলাকালীন বিদ্যুৎ চলে গেলে, শিল্পীদের পারফরমেন্স পছন্দ না হলে কিংবা প্রযুক্তি সৃষ্ট সমস্যায় সাময়িক অসুবিধা হলে চিৎকার করবেন না। এতে অনুষ্ঠানের আবহ, সাফল্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

• অনুষ্ঠান খুব পছন্দ হলেও অগ্রহণযোগ্য আচরণ যেমন শিস দেওয়া, অশ্লীল সংকেত প্রদর্শন, নাচানাচি করবেন না। এতে ব্যক্তিত্ব ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

• অনুষ্ঠান শেষে হৈচৈ করবেন না। ভদ্রভাবে হল রুম থেকে বেরিয়ে আসুন। মনে রাখবেন, একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সফলভাবে অংশগ্রহণ করে আপনি সামাজিক মানুষ হয়ে ওঠার প্রাথমিক ধাপটি সম্পন্ন করলেন।

About Muhammad Faisal

Muhammad Faisal
একরাশ স্বপ্ন মুঠোয় করে হাটছি অবিরাম..........

Check Also

ইন্টারনেটে চ্যাটিং কি করবেন কি করবেন না

ইন্টারনেটে চ্যাটিং কি করবেন কি করবেন না

বর্তমান সময়ে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অনেক কিছুই প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে পড়ছে। মোবাইল, কম্পিউটার, ল্যাপটপ ইত্যাদি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *