Home / কেরিয়ার / আত্মকর্মসংস্থান / স্কুল বা ট্রেনিং সেন্টার | ঘরে বসে বাড়তি আয় (৫ম পর্ব)
স্কুল বা ট্রেনিং সেন্টার ঘরে বসে বাড়তি আয় ৫ম পর্ব

স্কুল বা ট্রেনিং সেন্টার | ঘরে বসে বাড়তি আয় (৫ম পর্ব)

শিক্ষিত বা কোনও নির্দিষ্ট বিষয়ে পারদর্শী যে কেউ শুরু করতে পারেন স্কুলিং বা যে কোনো বিষয়ে ট্রেনিং স্কুল। বাড়ীতে একটি বাড়তি ঘর বা বসার ঘর কিংবা বড় বারান্দা হতে পারে এর সূচনা। যেসব বিষয়ে ট্রেনিং দেয়া যায় তা হলো- কম্পিউটার, ছবি আঁকা, গান শেখানো, বাদ্যযন্ত্র, হস্তশিল্প শেখানো বা কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ে পড়ানো ইত্যাদি।

কম্পিউটার সম্পর্কে যদি আগ্রহ থাকে এবং কিছু ডিপ্লোমা কোর্স জানা থাকে তাহলে কম্পিউটার ট্রেনিং স্কুল দিতে পারেন। সাধারণভাবে কম্পিউটারের যে কোর্সগুলো গুরুত্বপূর্ণ সেগুলো হলো- ফান্ডামেন্টাল কোর্স, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন। যদি নিজের একটি কম্পিউটার থাকে তবে ঘরোয়াভাবে এসব কোর্সের কোনো একটি দিয়ে শুরু করা যেতে পারে। গান, বাদ্যযন্ত্র শেখানো এবং ছবি আঁকার জন্য একইরকমভাবে স্কুলিং করা যেতে পারে। তবে ছাত্র পাওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানের একটি নাম ঠিক করে সাইনবোর্ড দিতে হবে। আপনার এলাকার আশেপাশে লোকের নজর পড়ে এসব স্থানে পোস্টার, লিফলেট বিলি করতে পারেন। এছাড়া স্থানীয় পত্রিকার হকারকে কিছু টাকা দিয়ে সংবাদপত্রের সাথে লিফলেট দিয়ে প্রতিটি বাড়িতে পৌছে দিতে পারন আপনার স্কুলিং এর খবর।

About Muhammad Faisal

Muhammad Faisal
একরাশ স্বপ্ন মুঠোয় করে হাটছি অবিরাম..........

Check Also

ফ্রিল্যান্স কাজ ঘরে বসে বাড়তি আয় ৭ম পর্ব

ফ্রিল্যান্স কাজ | ঘরে বসে বাড়তি আয় (৭ম পর্ব)

বিশ্বায়নের এই যুগে বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এদেশেও ফ্রিল্যান্স কাজের অনেক ক্ষেত্রে তৈরি হয়েছে। এখন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *